আম্ফানে বাংলায় ‘ন্যূনতম ক্ষতি’ হয়েছে,সোশ্যাল মিডিয়ায় তীব্র কটাক্ষের মুখে রাজ্যপাল

আম্ফানের তান্ডব দক্ষিণবঙ্গের একটা বড় অংশকে কার্যত শ্মশান করে দিয়ে চলে গিয়েছে। সেই ঝড়ের তান্ডবে রাজ্য সরকারের হিসাব অনুযায়ী বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত 72 জনের মৃত্যুর খবর এসেছে। শুধু কলকাতাতেই মারা গিয়েছেন 15 জন। এযাবৎ এই বিধ্বংসী ঝড় আগে কেউ দেখেনি। এমনই বলে চলেছেন রাজ্যবাসী।সেখানে নাকি ‘ন্যূনতম ক্ষতি’ হয়েছে। এমনই দাবি করে সকালে টুইট করেছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়।রাজ্যপাল লেখেন, “আমফানের প্রকোপে যে প্রাণহানি ঘটেছে বা সম্পত্তি নষ্ট হয়েছে তার জন্যে আমি মর্মাহত। আমি গত কয়েকদিন ধরে ক্রমাগত বিভিন্ন এজেন্সির সঙ্গে সম্পর্ক রেখে চলেছিলাম। তাদের দায়িত্ববোধ ফলে ন্যুনতম ক্ষতি হয়েছে। তবু এটি একটি বিনাশকারী ছাপ রেখে গেছে যা বহু দশকের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ। এখন প্রত্যেককে সর্বব্যাপী ত্রাণের কাজে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে।”এই নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় শুরু হয়েছে জোর তরজা। অনেকেই বলছেন রাজ্যপালের এই টুইট আসলে আমফনের ধ্বংসলীলাকে ছোটো করে দেখা।

আরও পড়ুন  একুশের বিধানসভার আগে বড়সড় রদবদল মালদহের তৃণমূলের সাংগঠনিক স্তরে

পরে একাধিক ট্যুইটে রাজ্যপাল লেখেন, ‘তবু এটি একটি বিনাশকারী ছাপ রেখে গেছে যা বহু দশকের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ। এখন প্রত্যেককে সর্বব্যাপী ত্রাণের কাজে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে।’নিজের তরফে পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করতে গিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘সুপার সাইক্লোন আমফান ব্যাপক ও অভূতপূর্ব ক্ষতি করেছে। অবর্ণনীয় কষ্টের মধ্যে আছেন মানুষজন। NGOগুলি সমেত সকলকে অনুরোধ করছি রিলিফের কাজে ঝাঁপিয়ে পড়তে। আমি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এর পক্ষ থেকে রিপোর্টের জন্য অপেক্ষা করছি যাতে প্রধানমন্ত্রী সত্ত্বর যথাযোগ্য পদক্ষেপ করতে পারেন।’

আরও পড়ুন  একুশের বিধানসভার আগে বড়সড় রদবদল মালদহের তৃণমূলের সাংগঠনিক স্তরে

মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, রাজ্যে একাধিক ব্রিজ ভেঙে পড়েছে। প্রচুর বাড়ি, নদীবাঁধ ভেঙে গেছে। বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙে গিয়েছে। 6 মাস আগে বুলবুলের পর বাঁধের মেরামত হয়েছিল, সেই সব নদীবাঁধও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

 

Facebook Comments

Recommended For You

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *