অসমে ভোট শেষ হতেই বাঙালিদের ফের ডিটেনশন ক্যাম্পের নোটিশ

ভোটগ্রহণের পর্ব শেষ হতে না হতেই অসমে ডি ভোটারদের বাড়িতে ফের বিদেশি নোটিশ পাঠাতে শুরু করেছে রাজ্য সরকার। গত ৬ ই এপ্রিল অসমে শেষ দফার ভোট হয়।এবার কিন্তু কারো  হাতে নোটিশ ধরিয়ে দিচ্ছে না। বাড়ির দেয়ালে কিংবা বাড়ির পাশের ইলেকট্রিক খুঁটিতে নোটিশ টাঙিয়ে দিয়ে আসছে পুলিশ।

অসমের ডিটেনশন ক্যাম্প কমবেশি ২৫ বিঘা জমিতে গড়ে উঠছে। ১১টি বিল্ডিং তৈরির কাজ সম্পূর্ণ। মহিলাদের জন্য থাকছে পৃথক দু’টি ভবন। থাকবে একটি মেডিক্যাল সেন্টার। ক্যাম্পের বাইরে স্কুল। ঢোকার মুখে জেলের মতো বিশাল লোহার গেট। ভোট মিটলেই এই ক্যাম্প চালু করবে বিজেপি। অসমজুড়ে এই ধরনের ১০টি ক্যাম্প তৈরি করার পরিকল্পনা রয়েছে তাদের।বিজেপির দাবি, তারা শুদ্ধ এনআরসি তৈরি করবে, বেশি করে ফরেনার্স ট্রাইবুনাল গড়বে। আবার সরকারি ঘোষণা, রাজ্যে ১০টি ডিটেনশন সেন্টার হবে।

আরও পড়ুন  করোনা সারবে কি জানা নেই,তাও রামদেবের করোনিলকে ছাড়পত্র দিল কেন্দ্র

অসম জাতীয় পরিষদের সভাপতি লুরিণজ্যোতি গগৈ বলেন, “আমাদের লড়াই কিন্তু বাঙালিদের বিরুদ্ধে নয়। অসম চুক্তি ১৯৭১ সাল পর্যন্ত সব বাঙালিকে অসমের মানুষ হিসেবে মেনেই নিয়েছিল। কিন্তু সিএএ এমন অসাংবিধানিক চক্রান্ত, যার ফলে ১৯৭১ সালের আগেকার অসমবাসী বাঙালিদেরও সকলে সন্দেহের চোখে দেখতে শুরু করেছেন।”

বাঙালি ঐক্য মঞ্চের নেতা অমৃতলাল দাস বলেন, “কংগ্রেসের সিএএ বিরোধী নীতি ও নেতৃত্বহীনতায় বাঙালি আস্থাহীন। এ দিকে বিজেপির আইটি সেল ভয় আর উস্কানির মগজধোলাই চালাচ্ছে। রক্তকরবীতে একটি সংলাপ ছিল, ‘যক্ষপুরীর ভালো যে কার ভালো সে কথা স্পষ্ট বুঝতে পারচিনে।’ অসম ভোটে বাঙালিরও হয়েছে সেই দশা।”

আরও পড়ুন  করোনা সারবে কি জানা নেই,তাও রামদেবের করোনিলকে ছাড়পত্র দিল কেন্দ্র

এদিকে  তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন,” আমি আমাদের বাংলায় কোনও এন আর সি, সি এ এ করতে দেব না। সব উদ্বাস্তু দেশের নাগরিক”এছাড়াও তিনি বলেন ,অসমে কাল থেকে আবার ডিটেনশন ক্যাম্পের নোটিশ দিতে শুরু করেছে। যেই ভোট হয়ে গেছে আবার নোটিশ। আমি আপনাদের পাহারাদার। আমি গুলি করে লোক মারার চৌকিদার নয়। নিজেদের ভোটটা দিন। আমি রাজ্যে এন আর সি হতে দেব না। আপনারা ভোট দেবেন। আপনারা সবাই দেশের নাগরিক।

 

Facebook Comments

Recommended For You

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *